ঢাকায় থাকি

ঢাকার খবর প্রতিদিন

১৭। কোনটি তদ্ভব শব্দ?

ফিচার বিজ্ঞাপন

ক) চাঁদ
খ) সূর্য
গ) নক্ষত্র
ঘ) গগন

ব্যাখ্যাঃ এখানে সূর্য, গগন, নক্ষত্র, তৎসম শব্দ আর চাঁদ তদ্ভব শব্দ। যেসব শব্দের মূল সংস্কৃত শব্দে পাওয়া যায়, কিন্তু ভাষার স্বাভাবিক বিবর্তন ধারায় প্রকৃতের মধ্য দিয়ে বাংলা ভাষার স্থান করে নিয়েছে, সেসব শব্দকে তদ্ভব শব্দ বলে। যেমন- সংস্কৃত – হস্ত > প্রাকৃত- হত্থ > তদ্ভব-হাত।
সূর্য, গগন, নক্ষত্র হল তৎসম শব্দ এবং চাঁদ তদ্ভব শব্দ।

উত্তরঃ ক) চাঁদ

তদ্ভব বাংলা ভাষায় ব্যবহূত সংস্কৃতজাত শব্দ। ‘তৎ’ মানে তা থেকে অর্থাৎ সংস্কৃত শব্দ থেকে এবং ‘ভব’ মানে জাত। অতএব ‘তদ্ভব’ শব্দের অর্থ সংস্কৃত থেকে জাত শব্দ। প্রাচীন ভারতীয় আর্যভাষার আদি রূপ হচ্ছে বৈদিক বা সংস্কৃত। কালে কালে ধ্বনিগত পরিবর্তনের ফলে এ ভাষার অনেক শব্দ প্রাকৃতের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন আধুনিক ভারতীয় আর্যভাষায় অনুপ্রবেশ করে। পূর্বভারতীয় বাংলা ভাষায়ও এ ধরনের অনেক শব্দ প্রবেশ লাভ করে। বাংলা ভাষার উদ্ভব মাগধী প্রাকৃত থেকে।

সংস্কৃত শব্দগুলি পূর্বভারতে প্রথমে মাগধী প্রাকৃতের রূপ লাভ করে এবং পরে তা বাংলায় রূপান্তরিত হয়। যেমন: চাঁদ<চান্দ চন্দ<চন্দ্র, দই<দহি<দধি, বৌ<বউ<বহু<বধূ, মাছি<মাচ্ছি মচ্ছি<মচ্ছিঅ<মচ্ছিআ<মক্ষিকা ইত্যাদি। এ তদ্ভব শব্দগুলি বাংলা ভাষার মূল উপাদান। বাঙালির দৈনন্দিন জীবনে যে শব্দগুলি ব্যবহূত হয় তার অধিকাংশই তদ্ভব শব্দ। সাহিত্যের ক্ষেত্রেও খ্যাতনামা লেখকদের রচনার শতকরা ৬০ ভাগ শব্দই তদ্ভব।  [দুলাল ভৌমিক]

ফিচার বিজ্ঞাপন

চায়না ভিসা (বিজনেসম্যান)

মূল্য: ১০,০০০ টাকা

দুবাই ও তুরস্ক ৭দিন ৬ রাত

মূল্য: ৫৫,৯০০ টাকা