এটা আমার এক ভাই এর বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকেই আপনাদের জন্য শেয়ার করছি । কোন অলিক কল্পনা বা কাউকে উপদেশ দেওয়ার জন্য নয়। তবে কউ যদি এ লেখার পর চেষ্টা করেন এবং সফল হন, তবে আমি খুশি হব ।

আমি চা পাতার ব্যবসার কথা বলছি। খুব অল্প টাকা ইনভেস্ট করে যে কেউ শুরু করতে পারেন । আমাদের চারপাশে অসংখ্য চায়ের দোকান রয়েছে । প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ চা খাচ্ছে এসব দোকান থেকে । আর যারা চা বিক্রি করছে, তারা প্রতিদিন ১ থেকে ২ কেজি পর্যন্ত চা পাতা বিক্রি করছে ।

 আপনি আপনার আশে পাশের মাত্র ৭০টি চায়ের দোকানকে টার্গেট করুন। ধরুন আপনি ৭০টি চায়ের দোকান ঠিক করেছেন যারা আপনার কাছ থেকে প্রতিদিন আধা কেজির ১ প্যাকেট চা কিনবেন। দোকানীরা আধা কেজির ১ প্যাকেট চা পাতা ১৪০ টাকা থেকে ১৬০ টাকা দরে বিভিন্ন কোম্পানীর কাছ থেকে কিনে ।

আপনি তাদেরকে এর চেয়েও কম দামে সরবরাহ করবেন। আপনি ভাল মানসম্পন্ন চা ১২০-১২৫ টাকা দরে কিনতে পারবেন। ধরুন আপনি ১২০ টাকা দরে কিনে দোকানীকে ১৩০ টাকা দরে দিলেন। তাহলে দোকানী এখানেই ১০-২০ টাকা লাভ করতে পারবে।

আর আপনার লাভ হবে ১০ টাকা প্রতি প্যাকেটে। তাহলে ৭০ প্যাকেটে আপনার লাভ হবে ৭০০ টাকা প্রতিদিন। আপনার ইনভেস্ট ৮,৪০০ টাকা ৭০ প্যাকেটে (১২০ টাকা প্রতি প্যাকেট)। তাহলে ৩০ দিনে আপনার লাভ হবে ২১,০০০ টাকা।

ফিচার বিজ্ঞাপন

Australia Visa (for Private Service Holder)

মূল্য: 20,000 Taka

Email Marketing

মূল্য: ১৫,০০০ টাকা

এখন প্রশ্ন, ৩০ দিনে তো আমাকে ২,১০০ প্যাকেট চায়ের জন্য ২,৫২,০০০ টাকা দরকার । আমি বলব, না আপনাকে এত টাকা ইনভেস্ট করতে হবে না । আপনার একদিনে ইনভেস্ট ছিল ৮,৪০০ টাকা, এটাকে শুধু ডাবল করবেন, অথ্যাৎ ১৬,৮০০ টাকা হলেই আপনার হবে।

 কিভাবে? আপনি যে সব দোকানীকে চা পাতা দেবেন, তাদের কাছ থেকে নগদ টাকা নেওয়ার চেষ্টা করবেন। এসব ছোট দোকানদাররা নগদ লেনদেন করে। যদি নগদ নিতে না পারেন, তাহলে পরের দিন অবশ্যই তারা দিয়ে দেবে। তাই আপনাকে ১ প্যাকেট দোকানে দিয়ে পরের দিন টাকা নিতে হবে এবং আরেকটি প্যাকেট তাদেরকে দিতে হবে।

অথ্যাৎ এক প্যাকেটের পুজি আপনাকে মার্কেটে রাখতে হবে আর এক প্যাকেটের পুজি দিয়ে আপনার মাল কিনে রাখতে হবে পরের দিন তাদেরকে দিয়ে । এভাবে আপনি দুটো পুজি ৮,৪০০ + ৮,৪০০ = ১৬,৮০০ টাকা ইনভেস্ট দিয়ে মাসে ২১,০০০ টাকা লাভ করতে পারবেন অনায়াসে।

কুইক সেল অফার

অবিশ্বাস্য দামে ব্রান্ডের ঘড়ির কিনুন

অবিশ্বাস্য দামে ব্রান্ডের ঘড়ির কিনু...



৯ বার পড়া হয়েছে