দেড় বছর পর স্কুলে ফিরেছে শিশুরা। তবে বদলে গেছে পরিবেশ-পরিস্থিতি। করোনা পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধিতে সবচেয়ে বেশি জোর দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। তবে শিশু-কিশোরদের নিয়ে বাইরে বের হলেও স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকেই যায়। উদ্বিগ্ন অভিভাবকরাও। তাই তাদের নিয়ে স্কুলে বা বাইরে বের হওয়ার সময় বা আগে অবশ্যই কিছু বিষয়ে জোর দিতে হবে।

বাড়িতে স্বাস্থ্যবিধির শিক্ষা দিন
করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি বলতে সবার আগে যে বিষয়গুলো আসে তা হলো সামাজিক দুরত্ব, হাত ধোয়া ও মাস্ক পরা। স্কুলগুলোতে হাত ধোয়া ও মাস্ক পরার ব্যাপারে কড়াকড়ি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তাই শিশুকে বাড়িতেই এগুলোতে অভ্যস্ত করতে পারেন। কিছুক্ষণ পর পর হাত ধোয়ায় উৎসাহিত করুন। স্কুল খোলার কারণে আগের চেয়ে দীর্ঘসময় বাইরে থাকতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। তাই বাইরে থাকার সময়টাতে কাপড়ের মাস্ক পরার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

বাস্তবে কিছু স্কুলে বিশেষ করে ছোট শিশুদের ক্ষেত্রে সামাজিক দুরত্ব মেনে চলা খুব কঠিন। বিশেষজ্ঞরা বলেন, সামাজিক দুরত্ব মেনে চলার বিষয়টি স্কুলের আদর্শ শিক্ষাব্যবস্থা ও সামাজিক শিক্ষার সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

অসুস্থ্য হলে শিশুকে বাড়িতে রাখুন
মহামারির এই সময়ে শিশু যখন স্কুলে যাচ্ছে তখন প্রতিদিনই শিশুর স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিন। খেয়াল রাখুন করোনার কোন উপসর্গ তারমধ্যে আছে কি না। যেমন, জ্বর, সর্দি, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি।
অনেক স্কুলই প্রতিদিন ক্লাস শুরুর আগে শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা মাপার ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু জ্বর ছাড়াও যেহেতু করোনার আরও উপসর্গ আছে, তাই বাড়িতে শিশুর স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিন। কোন ধরনের উপসর্গ দেখা দিলে বাড়িতে রেখে শিশুর চিকিৎসা করান। কারণ আপনার শিশুর করোনা হলে স্কুলের অন্যান্যদের মধ্যে তা ছড়িয়ে পড়তে পারে। আবার অসুস্থ্য অবস্থায় স্কুলে গেলে তা আরও মারাত্মক হতে পারে।

মহামারি সম্পর্কে শিশুকে অবগত করুন
মহামারিতে পাল্টে গেছে পুরো পৃথিবী। নতুন পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নিতে শিশুদের সহযোগিতা করুন। মহামারি সম্পর্কে তাদের জানান। সংক্রমণের ঝুঁকি সম্পর্কে অবহিত করুন। করোনার বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা করুন।

ফিচার বিজ্ঞাপন

মায়ানমার ভিসা (ভিজিট ভিসা)

মূল্য: ৫,০০০ টাকা

US Visa (Spouse)

মূল্য: 5,000 Taka

শিশুকে সবকিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত রাখুন
করোনাভাইরাস অন্যান্য রোগের চেয়ে অনেক বেশি সংক্রমক হওয়ায় যেকোন কিছু স্পর্শের মাধ্যমে খুব সহজে যে কেউ এ রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তাই শিশুদের সবকিছু স্পর্শ করা থেকে বিরত রাখার চেষ্টা করুন।

ভিড় থেকে দূরে রাখুন
শিক্ষাজীবন যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সেজন্য স্কুল খোলা হয়েছে যা শিক্ষার্থীদের জন্য খুবই জরুরি। তবে সংক্রমণ রোধে শিশুকে ভিড় থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করুন। স্কুলে যাওয়া আসার সময়গুলোতে এ বিষয়ে খেয়াল রাখুন।  স্কুলের বাইরে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া শিশুদের বাইরে বের না করানোই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। বাইরে বের হলেও ভিড় এড়িয়ে চলুন। সেক্ষেত্রে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধির বিষয়টি খেয়াল রাখুন।

প্রাসঙ্গিক কথাঃ “ঢাকা বৃত্তান্ত”প্রচলিত অর্থে কোন সংবাদ মাধ্যম বা অনলাইন নিউজ সাইট নয়। এখানে প্রকাশিত কোন ফিচারের সাথে সংবাদ মাধ্যমের মিল খুঁজে পেলে সেটি শুধুই কাকতাল মাত্র। এখানে থাকা সকল তথ্য ফিচার কেন্দ্রীক ও ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত। “ঢাকায় থাকি”কর্তৃপক্ষ বিশ্বাস করে এসব তথ্য একত্রিত করার ফলে তা ঢাকাবাসীকে সাহায্য করছে ও করবে। আসুন সবাই আমাদের এই প্রিয় ঢাকা শহরকে সুন্দর ও বাসযোগ্য করে গড়ে তুলি। আমরা সবাই সচেতন, দায়িত্বশীল ও সুনাগরিক হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করি।

কুইক সেল অফার

১২৩০ বর্গফুটের দক্ষিণমুখি ফ্ল্যাট মাত্র ৩৭ লক্ষ টাকায়!

১২৩০ বর্গফুটের দক্ষিণমুখি ফ্ল্যাট মা...



৬ বার পড়া হয়েছে