ঢাকাসহ সারাদেশে ১২-১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের করোনার প্রতিষেধক ফাইজারের টিকাদান কার্যক্রমের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তাদের ওই বয়সের শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় তথ্য নিয়ে টিকাদানের তালিকা প্রণয়ণ করবে এবং প্রচলিত নিয়ম অনুসারে টিকা গ্রহণের জন্য সুরক্ষা অ্যাপসের মাধ্যমে নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে।

তবে শিক্ষার্থীদের টিকা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দেওয়া হবে না। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র ও ঢাকার বাইরে বড় আকারের কেন্দ্রগুলোতে (যেখানে প্রতিদিন হাজার হাজার শিশুকে টিকা দেওয়া সম্ভব) টিকাদানের পরিকল্পনা রয়েছে। শিক্ষার্থীদের টিকাদানের জন্য ৭০০ থেকে ৮০০ নার্স নিয়োজিত থাকবেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) ও ভ্যাকসিন ডেপ্লয়মেন্ট কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) দুপুরে বলেন, শিক্ষার্থীদের টিকাদানের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে। সুনির্দিষ্ট দিনক্ষণ নির্ধারিত না হলেও খুব শিগগিরই ১২-১৭ বছর বয়সী শিক্ষার্থীদের টিকাদান কার্যক্রম শুরু হবে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদিত ফাইজারের টিকা দেওয়া হবে।
শিক্ষার্থীদের মধ্যে যাদের জন্মনিবন্ধন সার্টিফিকেট রয়েছে তাদেরই টিকাদান করা হবে।

প্রাসঙ্গিক কথাঃ “ঢাকা বৃত্তান্ত”প্রচলিত অর্থে কোন সংবাদ মাধ্যম বা অনলাইন নিউজ সাইট নয়। এখানে প্রকাশিত কোন ফিচারের সাথে সংবাদ মাধ্যমের মিল খুঁজে পেলে সেটি শুধুই কাকতাল মাত্র। এখানে থাকা সকল তথ্য ফিচার কেন্দ্রীক ও ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহীত। “ঢাকায় থাকি”কর্তৃপক্ষ বিশ্বাস করে এসব তথ্য একত্রিত করার ফলে তা ঢাকাবাসীকে সাহায্য করছে ও করবে। আসুন সবাই আমাদের এই প্রিয় ঢাকা শহরকে সুন্দর ও বাসযোগ্য করে গড়ে তুলি। আমরা সবাই সচেতন, দায়িত্বশীল ও সুনাগরিক হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করি।

কুইক সেল অফার

অবিশ্বাস্য দামে ব্রান্ডের ঘড়ির কিনুন

অবিশ্বাস্য দামে ব্রান্ডের ঘড়ির কিনু...



১১ বার পড়া হয়েছে