ফ্ল্যাটের বারান্দায় ছোট্ট সবুজ বাগান

কংক্রিটের এই শহরে সবুজ প্রকৃতির ছোঁয়া প্রায় অধরা। বাগান করা সেখানে অনেক সময় অসম্ভব।

এই শহরে যার নিজের বাড়ি আছে তার জন্য হয়তো ছাদে গাছ লাগানো সম্ভব। কিন্তু যিনি এই শহরে ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়ে থাকেন, তার জন্য বারান্দার ছোট্ট পরিসর একমাত্র ভরসা। তাই ফ্ল্যাটের বারান্দায় বাগান করা বৃক্ষপ্রেমিকদের কাছে এখন বেশ জনপ্রিয়।

বারান্দায় বাগানের জন্য এখন নার্সারিতে পাওয়া যায় বাহারি গাছ। টগর, গোলাপ, অপরাজিতা, জুঁই, দোলনচাঁপা, অর্কিড, লিলি, হাসনাহেনার মতো ফুলের গাছ যেমন আছে, তেমনি পাতাবাহারের মতো অর্নামেন্টাল গাছও আছে। পছন্দের গাছ কিনে টবে লাগিয়ে পাওয়া এক টুকরো সবুজের ছোঁয়া। তবে এসব গাছের জন্য নানারকম যত্নআত্তিও প্রয়োজন। যেমন প্রয়োজনীয় রোদ, ছায়া, পানির ব্যবস্থা থাকতে হয়।

বারান্দা বাগানের ক্ষেত্রে সাধারণত ছোট গাছ বেছে নিতে হয়। এখন বারান্দায় টবে লাগানোর উপযোগী ফল ও ঔষধি গাছও পাওয়া যায়। বারান্দায় গাছ লাগানোর ক্ষেত্রে আগে মাটির টব ব্যবহৃত হলেও এখন চাহিদামতো প্ল্যাস্টিকের টবও পাওয়া যায়। এসব টবে কিছু গাছ রেলিংয়ে আবার কিছু গাছ ছাদ থেকে ঝুলিয়েও লাগানো যায়। আবার মাটির হাঁড়িও দড়ির সাহায্যে ঝুলিতে দেওয়া যায়। এখন চাহিদামতো মাটি এবং জৈব সারও নার্সারিগুলো থেকে সরবরাহ করা হয়।

পছন্দের গাছ লাগিয়ে তার যত্নআত্তি করতে গিয়ে আপনার সময় যেমন ভালো কাটবে, তেমনি মনও ফুরফুরে থাকবে, চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে ফুলের ঘ্রাণ নেওয়া নিশ্চয়ই সুন্দর মুহূর্ত। পাশাপাশি প্রিয়জনের সঙ্গে গাছে ভরা বারান্দায় বসে দিতে পারেন জম্পেশ আড্ডা। কিংবা একাকীত্ব কাটাতে নিতে পারেন এক টুকরো সবুজ বাগানের স্নিগ্ধ সান্নিধ্য।

৩ Responses

  1. administrator says:

    আপনার তথ্যমুলক লেখার জন্য ধন্যবাদ। আশা রাখি আপনি নিয়মিত আপনার লেখা এখানে লিখবেন।

  2. পান্না চৌধুরী says:

    আমিও এই বিষয়ে লিখব। আপনি ভালো লিখেছেন।

  3. সাজেদুল হক says:

    আমি নিজেও বাসার দুই বারান্দা ভর্তি ফুল গাছ লাগিয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *